ভারতে ইলিশ পাঠানো শুরু

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে বরিশাল থেকে ভারতে ইলিশ মাছ পাঠানো শুরু হয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে অনুমতি পাওয়ার পরপরই গতকাল বুধবার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে প্রথম চালানে ১৯ টন ইলিশ পাঠানো হয়েছে। এ বছর পাঁচটি প্রতিষ্ঠানকে ৫০ টন করে মোট ২৫০ টন ইলিশ ভারতে রফতানির অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে রফতানিকারক প্রতিষ্ঠান মাহিমা এন্টারপ্রাইজের মালিক বরিশাল মৎস্য আড়তদার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নিরব হোসেন টুটুল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বরিশাল থেকে পাঁচটি প্রতিষ্ঠান ভারতে ইলিশ পাঠানোর অনুমতি পেয়েছে। সেগুলো হলো— মাহিমা এন্টারপ্রাইজ, তানিশা এন্টারপ্রাইজ, মাসফি এন্টারপ্রাইজ, এআর এন্টারপ্রাইজ ও সি গোল্ড এন্টারপ্রাইজ। প্রতিটি প্রতিষ্ঠান ৫০ টন করে ইলিশ মাছ পাঠানোর অনুমতি পেয়েছে। অনুমতি পেয়ে প্রথম চালান গতকাল বুধবার রাতেই বরিশাল নগরীর পোর্ট রোড মোকাম থেকে ভারতের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। প্রথম চালানে ১৯ টন ইলিশ যাচ্ছে। মাহিমা ও তানিশা এন্টারপ্রাইজ এসব ইলিশ রফতানি করছে। ইলিশের এ চালান বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে ভারতে প্রবেশ করবে।

পোর্ট রোডের আড়তদার জহির সিকদার বলেন, ভারতে ইলিশ রফতানির অনুমতি দেওয়াটা দেশের বাজারের জন্য ইতিবাচক। যশোর, সাতক্ষীরা ও আগরতলা হয়ে ভারতে প্রতিনিয়ত বিপুল পরিমাণ ইলিশ চোরাই পথে ভারতে পাচার হয়ে থাকে। বৈধভাবে রফতানির অনুমতি দেওয়ায় এখন চোরাই পথে ইলিশ পাচার বন্ধ হবে। তখন স্থানীয় বাজারেও ইলিশের সরবরাহ বেশি থাকবে।

এদিকে নিরাপদ প্রজননের জন্য আগামী ১২ অক্টোবর থেকে ২ নভেম্বর (২৭ আশ্বিন থেকে ১৭ কার্তিক) পর্যন্ত মোট ২২ দিন সারাদেশে ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধ থাকবে। এ সময় দেশব্যাপী ইলিশ পরিবহণ, ক্রয়-বিক্রয়, মজুত ও বিনিময় নিষিদ্ধ থাকবে।